অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি-ভিডিও মোবাইল ফোনে না রাখাই ভালো

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আবদুল কাদির। হারানো মোবাইল খুঁজে বের করা তার অন্যতম নেশা। গত আট বছরে ছিনতাই অথবা হারিয়ে যাওয়া প্রায় সাড়ে চার হাজারের বেশি মোবাইল খুঁজে দিয়েছেন তিনি। শুধু গুলশান থানায় সাধারণ ডায়েরির (জিডি) বিপরীতে উদ্ধার করেছেন ১ হাজার ২শ মোবাইল ফোন। মোবাইল ফোন হারানোর বিষয়ে জিডি হলেই ডাক পড়ে তার। এরপর তা উদ্ধারে মাঠে নেমে পড়েন তিনি। বর্তমানে তিনি কর্মরত বনানী থানায়।

প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পাঁচ শতাধিক অভিযোগ আসে কাদিরের কাছে। নিজের থানা তো বটেই, অন্য যে কোনো স্থানে মোবাইল হারালেও ভুক্তভোগীরা আসেন তার কাছে। এরই মধ্যে পুলিশ বিভাগ থেকে ২২ বার পুরস্কৃত হয়েছেন তিনি। ২০১৯ সালে পেয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পুরস্কার ‘আইজিপি ব্যাচ’।

বিজ্ঞাপন

হারানো মোবাইল ফোন উদ্ধার, না হারানোর কৌশল, পুরোনো মোবাইল ফোন কেনাবেচা সংক্রান্ত তথ্য ও হারিয়ে গেলে করণীয়সহ একাধিক বিষয়ে কথা বলেছেন জাগো নিউজের সঙ্গে। এএসআই আবদুল কাদিরের সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন নিজস্ব প্রতিবেদক তৌহিদুজ্জামান তন্ময়।

জাগো নিউজ: মোবাইল ফোন উদ্ধারের পেছনের গল্প ও প্রথম উদ্ধারের অভিজ্ঞতা জানতে চাই।

বিজ্ঞাপন

এএসআই আবদুল কাদির: ঘটনাটি ২০১৫ সালের কোনো এক রাতের। তখন তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় দায়িত্বরত কর্মকর্তার সহকারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলাম। এমন সময় এক নারী কাঁদতে কাঁদতে থানায় প্রবেশ করেন। কর্তব্যরত পুলিশ কর্মকর্তাকে তিনি জানান, মহাখালী এলাকা থেকে ফেরার সময় সিএনজিচালিত অটোরিকশায় তার মোবাইল ফোনটি হারিয়েছে। যেভাবেই হোক তার মোবাইল ফোনটি যেন পুলিশ উদ্ধার করে দেয়।

আরও পড়ুন >> ১১ মাসে ২৩০টি হারানো মোবাইল উদ্ধার করেছেন এএসআই মাসুদ

বিজ্ঞাপন

শুধু একটি মোবাইল ফোনের জন্য ওই নারীর এমন কান্না দেখে মনে কৌতূহল জাগে। ওই নারীর কাছে জানতে চাই মোবাইলে কী এমন আছে, যার জন্য তিনি এত কান্না করছেন? জবাবে ওই নারী জানান, হারিয়ে যাওয়া মোবাইল ফোনটি তার বাবার শেষ স্মৃতি। তার বাবা ওই ফোনটি কিনে দিয়েছিলেন। বাবার সঙ্গে অনেক ছবিও রয়েছে তার। কিন্তু কিছুদিন আগে তার বাবা মারা গেছেন। তাই বাবার শেষ স্মৃতিগুলো মোবাইলে বারবার দেখতেন ওই নারী। চরম মমতায় আগলিয়ে রাখতেন মোবাইল ফোনটিও। বলেই আবারও হু হু করে কান্না করতে থাকেন।

অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি-ভিডিও মোবাইল ফোনে না রাখাই ভালো

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আবদুল কাদির/জাগো নিউজ

ওই নারীর কান্না দেখে মনে দাগ কাটে। মনে মনে ঠিক করি, যেভাবেই হোক তার মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করবোই। নিজ উদ্যোগেই যোগাযোগ করি ডিবি পুলিশের সঙ্গে। জিডির কপিসহ অন্যান্য ডকুমেন্ট পাঠিয়ে দেই ডিবি কার্যালয়ে। তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় প্রায় তিন মাস পরে ওই নারীর মোবাইল ফোনটি উদ্ধার হয় বরিশাল থেকে। হারিয়ে যাওয়া মোবাইল ফোনটি হাতে পেয়ে সেদিনও খুশিতে কেঁদেছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন >> অবৈধ মোবাইল শনাক্ত শুরু, নিষ্ক্রিয় করা যাবে হারানো ফোন

জাগো নিউজ: হারানোর পর ভুক্তভোগীর করণীয় কী?

এএসআই কাদির: মোবাইল ফোন হারিয়ে গেলে প্রথমে নিকটস্থ থানায় গিয়ে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করতে হবে। হারানো মোবাইলটি ফিরে পেতেই শুধু জিডি করবেন তেমনটি নয়, নিজের নিরাপত্তার জন্যও জিডি জরুরি। মোবাইল ফোন কেনার পর বক্স ও ক্যাশমেমো যত্ন সহকারে রাখতে হবে। কারণ মোবাইল হারানো, ছিনতাই অথবা চুরি হয়ে যেতে পারে কিন্তু আইএমইআই নম্বর থাকলে সেই মোবাইল খুঁজে পেতে সহজ হয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*