অবশেষে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলেন সেই বেলায়েত

পড়াশোনায় বয়স কোনো বাধা নয়’ এই সত্যকে নিজের জীবনে বাস্তবায়ন করে দেখালেন ৫৫ বছর বয়সী বেলায়েত শেখ। গতকাল রোববার তিনি রাজধানীর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে ভর্তি হয়েছেন।

এর আগে চলতি বছর ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন বেলায়েত। এসব পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হওয়ায় রাজশাহীর বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন তিনি। সেখানে তিনি উত্তীর্ণ হন। কিন্তু যোগাযোগব্যবস্থার অসুবিধার জন্য তিনি সেখানে ভর্তি হননি। পরে ঢাকার স্টেট ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হন। তাঁর ভর্তির বিষয়টি আজ সোমবার ভোরে নিজের ফেসবুকে সবাইকে তিনি জানিয়েছেন।

 

ADVERTISEMENT
বেলায়েত শেখ গাজীপুরের শ্রীপুরের কেওয়া পশ্চিমখণ্ড গ্রামের হাছেন আলীর ছেলে। তাঁর জন্ম ১৯৬৮ সালে। তিনি তিন সন্তানের বাবা। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার জন্য মধ্য বয়সে এসে আপ্রাণ চেষ্টা করছিলেন তিনি। তাঁর এই অদম্য চেষ্টা কারণে তিনি দেশজুড়ে বেশ আলোচিত।

বেলায়েত ফেসবুকে ভর্তি ফরমের একটি ছবি প্রকাশ করে লিখেন, ‘আল্লাহর রহমতে সাংবাদিকতা অনার্স ভর্তি হয়েছি। স্টেট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের ধানমন্ডি শাখায়। আমার বাবা না থাকায় বাবার দায়িত্ব পালন করেন আমার ভাতিজা উপসচিব ডক্টর এস এম সেলিম রেজা। সবার কাছে আমার অসুস্থ মায়ের জন্য দোয়া চাই।’

বেলায়েত এর আগে তাঁর জীবনের গল্প বলেছিলেন প্রথম আলোকে। তিনি বলেন, বাধ্য হয়ে ১৩ বছর বয়সে তাঁকে পরিবারের দায়িত্ব নিতে হয়। এর মধ্যে তিনি স্বপ্ন আঁকেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবেন। ১৯৮৩ সালে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার জন্য ফরমফিলাপ করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তিনি। তখন তাঁর বাবা কঠিন অসুখ হয়। ফরমফিলাপের সেই জমানো টাকা দিয়ে বাবার চিকিৎসা করান তিনি। পাঁচ বছর পর ১৯৮৮ সালে আবার পরীক্ষা দেওয়ার প্রস্তুতি নেন। তখন দেশজুড়ে ছিল বন্যার প্রকোপ। বন্যার সময় তাঁর পরিবারের আর্থিক অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যায়। ফলে সেবারও পরীক্ষা দেওয়া হয়নি। তিনি ১৯৯০ সালে পুনরায় পরীক্ষা দেওয়ার প্রস্তুতি নেন। সে সময় তাঁর মা হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। সেবারও পরীক্ষা দেওয়া হয়নি।

এরপর তিনি পুরোপুরি সংসার দেখভালে মনোযোগী হয়ে পড়েন। এরমধ্যে বিয়ে হয়, ঘরে সন্তান আসে। পরিবারের ভরণপোষণের জন্য তিনি একসময় ওয়ার্কশপ প্রতিষ্ঠা করেন। তবে শৈশবে স্বপ্নদেখা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার বিষয়টি একেবারে মিলিয়ে যায়নি। অবশেষে ৫৫ বছর বয়সে এসে সেই স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার আপ্রাণ চেষ্টায় নিজেকে নিয়োজিত করেন তিনি। ২০১৯ সালে ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট থেকে এসএসসি ও ২০২১ সালে অপর একটি ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট থেকে এইচএসসি পাস করেন। পরে যোগ দেন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির যুদ্ধে।

বেলায়েত শেখ বলেন, ‘আমি চেষ্টা করে দেখিয়েছি, যেকোনো বয়সে পড়াশোনা করা যায়। পরিশ্রম আর চেষ্টা এক হলে শুধু পড়াশোনা নয়, সব কাজে সফল হওয়া সম্ভব।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*