কাউন্সিলর একরামুল ‘হত্যা’, বিদায়বেলায় যা বললেন বেনজীর

একরাম প্রশ্নে সাংবাদিকদের বেনজীর বলেন, ‘এটা একটা লিগ্যাল বিষয়। বিষয়টা অন্যায্য, অনৈতিক- এ ধরনের বিষয় চিহ্নিত না হওয়া পর্যন্ত আমার ব্যক্তিগত অনুভূতি প্রকাশ করার কোনো সুযোগ নেই।’

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাজারবাগ পুলিশ অডিটোরিয়ামে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) আইজিপি বেনজীর আহমেদ দীর্ঘ প্রায় সাড়ে ৩৪ বছরের পুলিশের কর্মজীবন শেষে অবসরে যাচ্ছেন। অবসরে যাওয়ার আগে শেষ কর্মদিবসে নিজের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের নানা অর্জনসহ বিভিন্ন বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

গত বছর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র একরামকে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের কথা উল্লেখ করে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে র‌্যাবের সাবেক-বর্তমান সাত কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। র‌্যাবের তৎকালীন মহাপরিচালক হিসেবে বেনজীরের নামেও নিষেধাজ্ঞা আসে। আসে কক্সবাজারে র‌্যাব-৭ এর সাবেক অধিনায়ক মিফতা উদ্দিন আহমেদের নামেও।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশে যে আইন আছে তা পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে নেই: বেনজীর

র‌্যাবের মহাপরিচালকের দায়িত্বে থাকাকালে একরাম খুন হওয়ার বিষয়টি তুলে বেনজীরকে এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেন, সেই ঘটনাটি তাকে নাড়া দেয় কি-না?

বেনজীর বলেন, ‘বিষয়টা হলো যে এটা আমার ব্যক্তিগত ক্যাপাসিটিতে ঘটেনি। এটা ঘটেছে সরকারি দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে। আমার ফিল্ড লেভেলের লোকজন দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটেছে। তাদের সঙ্গে কিন্তু যে ভদ্রলোক নিহত হয়েছেন, তার কিন্তু ব্যক্তিগত বিরোধ নেই, ব্যক্তিগত বিষয়ও না। এটা আমরা অনেকেই চিহ্নিত করার চেষ্টা করি ব্যক্তিগত বিষয়, কিন্তু সেটা না।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেখার দায়িত্ব আমাদের সহকর্মী কেউ ম্যান্ডেটের বাইরে গেছেন কি-না? যদি ওভার স্টেপ করে থাকে, তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়।’

একরামের ঘটনায় কোনো তদন্ত চোখে না পড়ার কথা এক সাংবাদিক জানালে প্রতিক্রিয়ায় বেনজীর দাবি করেন, ‘একাধিক তদন্ত হয়েছে। ম্যাজিস্ট্রেটের এনকোয়েরি হয়েছে, আমি যখন চলে আসি, তখন ইন্টারনাল এনকোয়ারির আদেশ দিয়ে এসেছি। তদন্ত হয়নি, এ কথা ঠিক না। বিভাগীয় তদন্ত হয়েছে।’

আরেক প্রশ্নের জবাবে বেনজীর বলেন, ‘কারও কাছেই জাদুর কাঠি নেই যে আমি সবকিছু অর্জন করে ফেলব। অর্জনের বিষয়টা হচ্ছে একটা প্রক্রিয়া এবং কখনও শেষ না হওয়া প্রক্রিয়া। অর্জনের প্রক্রিয়া কখনও থেমে থাকে না। সংগঠন হলো জীবন্ত বিষয়, আর জীবন্ত বিষয়ের বৈশিষ্ট্য হলো ক্রমাগত পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়।’

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*