চাকরি ফিরে পেতে ২৩ বছরের লড়াই

১৯৯০ সালে সহকারী তহশিলদার হিসেবে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসে যোগ দিয়েছিলেন আব্দুল মালেক। ১৯৯৮ সালের এপ্রিলে তাঁর প্রতিবন্ধী মেয়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে। ছুটির দরখাস্ত দিয়ে বগুড়ার গাবতলী উপজেলার উনঞ্চুরকী গ্রামের বাড়িতে আসেন তিনি। মেয়ের চিকিৎসার জন্য বছরখানেক ধরে দেশের নানা হাসপাতালে মালেককে ছোটাছুটি করতে হয়। কর্মস্থলে দীর্ঘ অনুপস্থিতির কারণে ওই বছরের ১২ আগস্ট তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করেন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। একই সঙ্গে মালেকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলাও হয়। বিষয়টি জানতে পেরে কর্মস্থলে গেলে তাঁকে সেখানে ঢুকতে দেননি কর্মকর্তারা।

মালেকের অভিযোগ, সাময়িক বরখাস্ত করার আদেশের কপিও তাঁকে দেওয়া হয়নি। বেশ কয়েকবার ওই কার্যালয়ে ধরনা দিয়েও কাজ না হওয়ায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়সহ সংশ্নিষ্ট দপ্তরগুলোয় একাধিকবার লিখিত আবেদন করেন। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। পরে সহকারী মোহরার হিসেবে কাজ শুরু করেন গাবতলী সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে। এখানে স্বল্প আয়ে চালাচ্ছিলেন পাঁচ সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে সাজানো সংসার।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*