টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে অনির্দিষ্টকালের জন্য জাহাজ চলাচল বন্ধ

EN
সীমান্তে উত্তেজনা
টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে অনির্দিষ্টকালের জন্য জাহাজ চলাচল বন্ধ
কক্সবাজার প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৩ অক্টোবর ২২ । ০৯:৩৯ | আপডেট: ০৩ অক্টোবর ২২ । ০৯:৪৩

ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

মিয়ানমারের অভ্যন্তরে টানা গোলাগুলির ফলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তে। বান্দরবানের ঘুমঘুম-তুমব্রু সীমান্তের পর এবার টেকনাফ সীমান্তেও আতঙ্ক বিরাজ করছে। ফলে টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নাব্যতা সংকটের কারণে জাহাজ চলাচল বন্ধের কথা বলা হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের পর্যটন বিভাগের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুম বিল্লাহ সমকালকে বলেন, নাফ নদীতে নাব্যতা সংকটের কারণে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত সব ধরনের জাহাজ চলাচল বন্ধ থাকবে।

তিনি জানান, পর্যটন মৌসুম শুরুর ঠিক আগ মুহূর্তে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে জাহাজ চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। বিভিন্ন সংস্থার লিখিত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নাব্য সংকটের কথা বলা হলেও আদতে এ সিদ্ধান্তের নেপথ্যে রয়েছে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে উত্তেজনা। মিয়ানমারের ছোড়া মর্টার শেল থেকে পর্যটকদের নিরাপদে রাখতেই এ সিদ্ধান্ত।

পর্যটন সংশ্লিষ্টরা জানান, দেশে পর্যটন মৌসুম শুরু হয় ১ অক্টোবর থেকে। মার্চ মাস পর্যন্ত দ্বীপটিতে পর্যটকরা যাতায়াত করতে পারেন। মৌসুম শুরু হলে টেকনাফ থেকে সাতটি জাহাজ ও ৩০টির বেশি ট্র্রলারে প্রতিদিন সেন্টমার্টিন যাওয়া-আসা করেন ৫ থেকে ১০ হাজার পর্যটক। এছাড়া কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম থেকে দুটি বিলাসবহুল জাহাজ চলাচল করে।

ফলো করুন-
ভিডিও দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন সমকাল ইউটিউব
জাহাজ মালিকদের সংগঠন সি ক্রজ অপারেটর অ্যাসোসিয়েশনের (স্কোয়াব) সাধারণ সম্পাদক হোসাইন ইসলাম বাহাদুর সমকালকে বলেন, মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সংঘর্ষের কারণে প্রশাসনের নির্দেশনা মেনে আমরা টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিন রুটে জাহাজ চলাচল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছি। তবে বিকল্প উপায় হিসেবে কক্সবাজার, চট্টগ্রাম ও ঢাকা থেকে জাহাজ চলাচল করার চেষ্টা করছি।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. এরফানুল হক জানান, নাব্য সংকট ও মিয়ানমার সীমান্তে সৃষ্ট সমস্যার কারণে নাফনদী দিয়ে চলাচলকারী জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত টেকনাফ থেকে জাহাজ চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে কক্সবাজার-সেন্টমার্টিন এবং চট্টগ্রাম-সেন্টমার্টিন রুটে পর্যটক চলাচল অব্যাহত থাকবে।

সীমান্তের দায়িত্বরত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সীমান্ত পরিস্থিতি যে কোনো সময় খারাপ হতে পারে। মিয়ানমারের গোলা বা মর্টার শেল পর্যটকবাহী জাহাজে এসে পড়তে পারে। এ আশংকা থেকেই মূলত টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে পর্যটকবাহী জাহাজ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কারণ নাফ নদী দুই দেশের মধ্যে সীমানা হিসেবে কাজ করছে। এই নদীর ৭ কিলোমিটার অভিন্ন নৌপথ পাড়ি দিয়ে সেন্টমার্টিনে যেতে হয়।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রট আবু সুফিয়ান বলেন, যেহেতু সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশ এসেছে, তাই অনির্দিষ্টকালের জন্য টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে জাহাজ চলাচল বন্ধ থাকবে।

প্রসঙ্গত, রাখাইন রাজ্যের বিভিন্ন পাহাড়ে টানা দুই মাস ধরে দেশটির সেনাবাহিনীর সঙ্গে স্বাধীনতাকামী আরাকান আর্মির তুমুল সংঘর্ষ চলছে। আরাকান আর্মির আস্তানা গুঁড়িয়ে দিতে যুদ্ধবিমান ও হেলিকপ্টার থেকে রাত ও দিনে ছোড়া হচ্ছে মুহুর্মুহু গুলি ও অসংখ্য মর্টারের গোলা। প্রতিদিন গুলি ও গোলা বিস্ফোরণের শব্দে কেঁপে উঠছে সীমান্ত এলাকার ঘরবাড়ি। উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে দিন পার করছেন সেখানকার বাসিন্দারা।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*