বিএনপি হিন্দুদের ওপর নজিরবিহীন অত্যাচার করেছে: চীফ হুইপ

হুইপ

জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী এমপি বলেছেন, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর নজিরবিহীন অত্যাচার করেছে। তাদের ব্যবসা বানিজ্য বন্ধ করে দিয়েছে। মন্দিরে পূজা করতে দেয়া হয় নাই। সেই পরিবেশ থেকে আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণে উত্তরণ করতে সমর্থ্য হয়েছি। সারাদেশে এখন আনন্দ উৎসবের সঙ্গে পূজা পার্বন পালিত হচ্ছে।

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) রাতে জেলার শিবচর উপজেলার বিভিন্ন দুর্গাপুজার মন্দির পরিদর্শন শেষে হিন্দু ধর্মালম্বীদের সাথে শুভেচ্ছা ও মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। মঙ্গলবার গভীর রাত পর্যন্ত শিবচরের পাচ্চর হরিসভা দূর্গা পূজার মঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ ছাড়াও এদিন শারদীয় দূর্গোৎসব উপলক্ষ্যে শিবচরের চারটি মন্দির পরিদর্শন করে হিন্দু ধর্মালম্বীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী এমপি।

তিনি বলেন, মুসলমান, খ্রীস্টানসহ সবাই যার যার ধর্ম শান্তিপূর্ণভাবে পালন করছে। একটা চক্র আছে যারা চায় ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে। চক্রটি চায় যখনই পূজার সময় আসে তখনই একটি ঘটনা ঘটিয়ে সারাদেশে বিতর্কের সৃষ্টি করতে। দেশের মধ্যে অস্থিরতা সৃষ্টি, বিদেশী প্রভুদের খুশি করার জন্য চক্রটি ঘটনাগুলো ঘটায়।

এদিন, চীফ হুইপ শিবচর সার্বজনীন রাধাগোবিন্দ জিউ মন্দির, ভদ্রাসন সার্বজনীন দূর্গা মন্দির, কাচিকাটা বাসুদেবের বাড়ি দূর্গা মন্দির ও পাচ্চর সর্বজনীন হরিসভা দূর্গা মন্দির পরিদর্শন করে।

মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে চীফ হুইপ আরও বলেন, এক সময় বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন, এখন প্রধানমন্ত্রীও এটা চান যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে। আনন্দ উৎসব করবে। যার যে ধর্মীয় অনুষ্ঠান হবে তাতে আমরা সবাই অংশগ্রহণ করবো। সেটাই এখন আপনারা করতে পারছেন, শুধুমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় থাকার কারণে।

এ সময় মাদারীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনির চৌধুরী, জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন, পুলিশ সুপার মো. মাসুদ আলম পিপিএম, উপজেলা চেয়ারম্যান আ. লতিফ মোল্লা, পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাজীবুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. তোফাজ্জেল হোসেন খান, পৌর আওয়ামী লীগ ও উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শংকর চন্দ্র ঘোষ, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি প্রশান্ত রাহা, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সহ-সভাপতি স্বপন রায়, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ ও প্রেসক্লাব সাধারন প্রদ্যুৎ সরকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*