মিশন থেকে ফিরে ছোটবোনের বিয়ে দেয়ার কথা ছিল শরীফুলের

মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় পুঁতে রাখা বোমা বিস্ফোরণে নিহত বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী সদস্য শরীফুল ইসলামের বাড়ি সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে চলছে শোকের মাতম।

শরীফুলের মা পাঞ্জু আরা বেগম নির্বাক হয়ে পড়েছেন। বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন বাবা লেবু শেখ। শরীফুলের বাবা ও মা মাঝে মাঝে অস্পষ্ট কণ্ঠে শুধু বলছেন, তোমরা আমার শরীফুলকে আইনা দাও, এইভাবে সে চইলা যাইতে পারে না। সন্তানের মৃত্যুর পর থেকে কাঁদতে কাঁদতে বারবার লুটিয়ে পড়ছেন তার মা, বাবা, ভাই ও স্ত্রীসহ পরিবারের সদস্যরা। অকালে সন্তান হারানোর শোক যেন কোনোভাবেই সইতে পারছেন না মা পাঞ্জু আরা বেগম। পরিবারটির আর্তনাদে ভারী হয়ে উঠেছে এলাকার পরিবেশ। কাঁদছেন প্রতিবেশীরাও। বুধবার (৫ অক্টোবর) সকালে সিরাজগঞ্জের বেলকুচি পৌর এলাকার বেড়াখারুয়া গ্রামের বাড়িতে গিয়ে এমন দৃশ্য দেখা যায়।

পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ছিলেন শরীফুল। ২০১৭ সালের ২৩ নভেম্বর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগদান করেন তিনি। মিশনে যাওয়ার ৬ মাস আগে বিয়ে করেন। দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে শরীফুল সবার বড়। মিশন থেকে ফিরে একমাত্র বোন লাকী খাতুনের বিয়ে দেয়ার কথা ছিল।

শরীফুলের স্ত্রী সালমা খাতুন চিৎকার করে বলছেন, আমার সব শেষ হয়ে গেছে। তোমরা আমার স্বামীকে ফিরিয়ে এনে দাও। আমার জীবন আজ বড় অন্ধকার। আমি আমার স্বামীকে ফেরত চাই। সালমার এমন চিৎকারে ভারি হয়ে উঠেছে পুরো এলাকা, সবার চোখে বইছে অশ্রুধারা।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*