লঞ্চচাপায় পা হারানোর শঙ্কায় রিনা

লঞ্চ ও পন্টুনের মাঝে চাপা পড়ে পা হারানোর শঙ্কায় পড়েছেন রিনা আক্তার (২৯) নামে এক নারী। তাকে সোমবার উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠিয়েছেন বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসাপাতালের চিকিৎসকরা।

মেহেন্দিগঞ্জ থানার ওসি শফিকুল ইসলাম জানান, যতটুকু জেনেছি রিনা আক্তারকে প্রথমে উদ্ধার করে রোববার রাতেই মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে রাতেই শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়। তবে এখন তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা খোঁজখবর রাখছি। তবে থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ দেননি। অভিযোগ দিলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে থানার এসআই রফিকুল ইসলাম বলেন, আহত রিনা আক্তার তার মা ফাতেমা বেগমকে ঢাকাগামী লঞ্চে উঠিয়ে দিতে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার উলানিয়ার কালিগঞ্জ লঞ্চঘাটে গিয়েছিলেন। এমভি ফারহান-৪ লঞ্চটি ঘাটে ভিড়লে রিনা আক্তার তার মা ফাতেমা বেগমকে নিয়ে লঞ্চে উঠছিলেন। এ সময় লঞ্চ ও পন্টুনের মাঝে চাপা লেগে বাম পায়ে গুরুতর জখম হয়। প্রচুর রক্তক্ষরণের পাশাপাশি হাঁটুর নিচের অংশ চামড়ার সঙ্গে ঝুলেছিল।

তিনি জানান, রিনা আক্তারের পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। পাশাপাশি এ ঘটনায় লঞ্চচালক, মাস্টার বা স্টাফদের কোনো ধরনের গাফিলতি বা অবহেলা ছিল কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. এইচএম সাইফুল ইসলাম বলেন, রোববার রাত ১১টার দিকে হাসপাতালের অর্থোপেডিক্স বিভাগের অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়েছিল রিনা বেগমকে। ক্ষতিগ্রস্ত পায়ের হাঁটুর নিচ থেকে হাড় গুঁড়োগুঁড়ো হয়ে গেছে। তারপরও পা না কেটে সবকিছু ম্যানেজ করে ব্যাক স্লাব দিয়ে রাখা হয়েছিল। পরে ঢাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার্ড করা হয়েছে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*