গণভবনের সামনে ঈদ করার ঘো’ষণা ভিপি নুরের

মোদিবি’রোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী জেলবন্দি ছাত্র নেতাদের অবিলম্বে মুক্তি না দিলে এবার গণভবনের সামনে ঈদ করার ঘো’ষণা দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু)-এর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর।

সোমবার (৩ মে) দুপুরে আটক ছাত্রদের ঈদের আগে মুক্তির দাবিতে উ’দ্বিগ্ন অভিভাবক ও নাগরিকদের উ’দ্যোগে রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্যকালে তিনি এ কথা বলেন।

ভিপি নুরুল হক, আমরা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কথা বলি না। আমরা জাতীয় স্বার্থে কথা বলেছিলাম। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার জন্য একজন সাম্প্রদায়িক ব্যক্তির (ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মুদি) বি’রুদ্ধে কথা বলেছিলাম।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আপনার বাবার কথা মনে করিয়ে দিয়ে বলতে চাই, আপনি যদি আপনার বাবার প্রকৃত আদর্শ ধারণ করেন তাহলে ছাত্র নেতাদের অতি দ্রুত মুক্তি দেবেন।

অন্যথায় আমরা ছাত্রনেতা ও পরিবারের সদস্যরা সি’দ্ধান্ত নিয়েছি, আমাদের ভাইবোনদের যদি মুক্তি দেয়া না হয় তাহলে আমাদের ঈদ হবে গণভবনের সামনে।
তিনি বলেন, যদি বাঁশখালির শ্রমিকদের মতো গুলি চালানো হয়,

মোদিবিরোধী আন্দোলনের মতো গুলি চালাতে হয়, তাহলে আজকে দেশের ভয়ার্ত পরিবেশ থেকে দেশকে রক্ষা করার জন্য, মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য যদি আমাদেরকেও ক্ষুদিরাম, সূর্যসেন, নুর হোসেন ও ডা. মিলনদের মতো জীবন দিতে হয় আমরাও সেই জীবন দিতেও প্রস্তুত।

এসময়য় ডাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, ‘আমরা কোনো রাজনৈতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে নই। আমরা সেই কোটা সংস্কার আন্দোলন থেকে শুরু করে কখনো কৃষকের জন্য, কখনো মোস্তাকের মৃত্যু, কখনো গু.ম-খু.ন, কখনো ধ.র্ষ. ণের বিচার চেয়ে জনগণের জন্য রাস্তায় নেমেছি।

আমরা জানি আন্দোলন করে এই দানবের মতো স্বৈরাচার সরকার, ফ্যাসিবাদী সরকারকে গুটি কয়েক ছাত্র মিলে হটাতে পারব না। এই মোদী আগমন নিয়ে দেশের বুদ্ধিজীবীসহ, বামপন্থী-ডানপন্থী, ছাত্ররা সবাই প্রতিবাদ করেছিল। আমরা তো ঢাল তলোয়ার নিয়ে এয়ারপোর্টে যায়নি। কিন্তু পুলিশ হা.মলা চালিয়ে আমাদের প্রতিবাদ পণ্ড করে দিয়েছে।

পুলিশের পদায়ন নিয়ে তিনি বলেন, ‘এর আগে কোটা সংস্কার আন্দোলনে দমন নিপী.ড়ন চালানো পুলিশদের পদায়ন করা হয়েছিল। ঠিক একইভাবে মোদী বি’রোধী আন্দোলনের পর পর গতকাল ৭ জনকে পদোন্নতি করা হলো। সমালোচিত এসপি হারুনকে এখন পদোন্নতি করা হয়েছে।

আগে তিনি নারায়ণগঞ্জে ছিলেন এখন তেজগাঁও অঞ্চলের দায়িত্ব দিয়ে পদায়ন করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে চাঁদা.বাজির, অপ.হর.ণের। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এক প্রোগ্রামে তিনি অস্বস্তি বোধ করেছিলেন যে হারুন সাহেব এখানে কেন। তারপরও এভাবে অ’পকর্ম করার ফলে পুলিশকে পুরস্কৃত করা হয়েছে।

‘আমাদের ছাত্রদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, কাউকে টেন্ডারবাজির দায়ে কাউকে হ.ত্যা মা’মলার আসামী করে ধরে নেয়া হয়েছে। একজন নতুন বিয়ে করে ঢাকায় এসেছিলেন তাকে পর্যন্ত আ’টক করেছে। অমানবিকভাবে একেকজনকে আ’টক করে আদালতে ঢোকানো হয়েছে। এই আ’তঙ্কে আমরা কি থেমে যাব? কখনোই না।’

ছাত্রদের ঈদের আগে মুক্তির দাবিতে আয়োজিত এ অবস্থান কর্মসূচির এ সভায় সভাপতিত্ব করেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এতে বক্তব্য রাখেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী দিলারা চৌধুরী প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *